Friday, June 21, 2024
Homeঅর্থনীতিমূল্যস্ফীতি লাগামহীন, অস্বস্তিতে অর্থনীতি

মূল্যস্ফীতি লাগামহীন, অস্বস্তিতে অর্থনীতি

বাজার ব্যবস্থায় নিবিড় তদারকি করে মূল্যস্ফীতি সামাল দেওয়া, কর্মসংস্থান ও বিনিয়োগ বাড়ানো এবং অতি জরুরিভাবে রিজার্ভ বাড়ানোর তাগিদ অর্থনীতিবিদদের।

নানামুখী সংকটে থাকা সীমিত আয়ের মানুষের সক্ষমতা কমছে; মাস শেষে আয়ে পোষাচ্ছে না, সঞ্চয় ভেঙে চলতে হচ্ছে কখনও সখনও। সাধারণের জীবনের এই চিত্র সামগ্রিক অর্থনীতির প্রতিফলন বলেই মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। কিছু সূচকের নিম্নমুখী দশায়, অন্য সূচকগুলোর স্বস্তি উবে গেছে; যে কারণে অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানোর সক্ষমতাও কমছে বলে মনে করছেন তারা।

তারা বলছেন, টাকার বিনিময় হার বাজারমুখী করা, সুদহার সীমা তুলে দেওয়া ও সংকোচনমূলক মুদ্রানীতির মত নীতি নির্ধারণী বিষয়গুলোতে স্বল্প সময়ের ব্যবধানে বড় পরিবর্তন ধাক্কা হয়ে দেখা দিয়েছে, যা নতুন করে চাপ তৈরি করেছে উত্তরণের পথে থাকা অর্থনীতিতে।

তাদের পর্যবেক্ষণ, সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনায় দুর্বলতার কারণেই মূলত নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে উচ্চ মূল্যস্ফীতির হার; এটিই এখন অর্থনীতির সূচকগুলোকে টেনে ধরছে, মূল অস্বস্তি তৈরি করছে।

লাগামের বাইরে চলে যাওয়া এই মূল্যস্ফীতি সামাল দেওয়ার মধ্যেই বাজার ব্যবস্থায় নিবিড় তদারকি, কর্মসংস্থান ও বিনিয়োগ বাড়ানো এবং অতি জরুরিভাবে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন তারা।

কোভিড-১৯ মহামারীর চাপ সামলে পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়ায় থাকা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নতুন সংকট ডেকে আনে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারির ইউক্রেইন-রাশিয়া যুদ্ধ। ডলার, জ্বালানি তেল ও খাদ্য শস্যের দাম বাড়তে থাকে। ব্যয় বেড়ে যায় ব্যবসা-বাণিজ্যের। সেই ধাক্কা সামাল দিতে গত দুই বছর ধরে বড় চাপে রয়েছে দেশের অর্থনীতির বিভিন্ন সূচক।

এ সময়কালে নিজস্ব চেষ্টার পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের চাহিদা মেটাতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফ এর সঙ্গে এক বছর আগে ঋণ চুক্তিতে যায় বাংলাদেশ। চুক্তিতে যাওয়ার আগে ও পড়ে চাপে থাকা অর্থনীতি সামাল দিতে নানামুখী সংস্কারের মধ্যে দিয়ে এখন যাচ্ছে বাংলাদেশ।

সেই সংস্কারও অনেকটা চাপ তৈরি করছে সাধারণের উপর। জ্বালানিতে ভর্তুকি কমিয়ে দিতে বিদ্যুত ও গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়। নানা পরীক্ষা নিরীক্ষার মধ্যে ডলারের দাম বাজারভিত্তিক করতে গিয়ে এক লাফে তা পৌঁছে গেছে ১১৭ টাকায়। আমদানি নিয়ন্ত্রণের মতো পদক্ষেপে আছে সরকার।

এতে ডলারের দাম যেমন বেড়েছে, তেমনি ঋণের সুদের হারও বেড়েছে। এতে শিল্প উৎপাদন, ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যয় বাড়ছে। আর মূল্যস্ফীতির চাপে সীমিত আয়ের মানুষ ধুঁকছে। ঋণের সুদ হার বাড়িয়ে সামাল দেওয়ার চেষ্টা এখন পর্যন্ত কাজে আসেনি।

এজন্য নীতি বাস্তবায়নের দুর্বলতা দেখতে পাচ্ছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ।

বাজেটের আগে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘‘অর্থনীতির চ্যালেঞ্জগুলো দীর্ঘ সময় ধরে থাকছে। সুদহার, বিনিময় হার ও বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে যেসব নীতি নেওয়া হচ্ছে তা ব্যর্থ হচ্ছে। আর্থিক খাত আরও চাপে পড়েছে। খেলাপি বেড়ে যাওয়ায় ব্যাংক খাত তারল্য সংকট থেকে বের হতে পারেনি।’’

তবে অর্থনীতির অন্য সূচকের মধ্যে রেমিটেন্স, রাজস্ব ও রপ্তানি আয় ওঠানামার মধ্য দিয়ে এখন কিছুটা স্বস্তিকর জায়গায় পৌঁছেছে। বাণিজ্য ঘাটতি কমায় বৈদেশিক বাণিজ্যের ভারসাম্য ও আর্থিক হিসাবগুলোতে আগের মত খুবই অস্বস্তির জায়গা অনেকটা কমেছে। তবে এসবের বিপরীতে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) বাস্তবায়ন হারে ধীরগতি বজায় রয়েছে, বিদেশি বিনিয়োগ পরিস্থিতি নাজুক হয়ে গেছে।

মূল্যস্ফীতি, সুদ ও বিনিময়ে হারের চাপ

চার বছর পরে সুদহারের সীমা তুলে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বিনিময়ে হারে ক্রলিং পেগ চালু করায় বেড়েছে ডলারের দাম। এ দুই সিদ্ধান্তে ব্যবসার খরচ অনেক বাড়ার আশঙ্কা ব্যবসায়ীদের।

বড় ধরনের নীতি পরিবর্তনের কয়েকটি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন শুরু হওয়ায় চাপে থাকা অর্থনীতিতে আরেকটু চাপ বাড়ছে বলে মনে করে বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক লিড ইকোনোমিস্ট জাহিদ হোসেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, ‘‘অর্থনীতি যে ঘুড়ে দাঁড়ানোর কথা ছিল তা এখনও দেখা যাচ্ছে না। সুদহার তুলে দিয়ে সার্কুলার দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আবার ব্যবসায়ীদের গভর্নর বলেছেন, ১৪ শতাংশের মধ্যে সুদহার থাকবে। তাহলে তো দুই ধরনের বার্তা গেল অর্থনীতিতে।

‘‘কাগজে কলমে নীতি থাকার পরও তাতে বিশ্বাস করা যাচ্ছে না। তাহলে ব্যবসায়িক সুরক্ষাটা কোথায় থাকলে-থাকল না। ব্যবসায়ীদের ঝুঁকি নেওয়ার সক্ষমতা থাকল না। এভাবে নীতি বিরোধী বক্তব্য দিলে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হবে না।’’

>> মূল্যস্ফীতি দুই অঙ্কের ঘরে রয়েছে গত দুই বছর ধরে।

>> গত বছরের অগাস্টে তা সর্বোচ্চ ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ উঠেছিল।

>> সবশেষ হালনাগাদ তথ্যে মে মাস শেষে তা আবার বেড়ে৯ দশমিক ৮৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

উচ্চ মূল্যস্ফীতির এমন পরিস্থিতিতে তা নিয়ন্ত্রণে বাজার তদারকিতে মন্ত্রণালয়গুলোকে কার্যকর করার পরামর্শ দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘‘মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করতে পণ্য সরবরাহ বাড়াতে হবে। এটি যদি না হয়, তাহলে যতোই বলা হোক মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আসবে, তা হবে না।’’

তিনি বলেন, ‘‘দোকানে তো পণ্য আছে। এর মানে সরবরাহের দিকটায় খুব সমস্যা নেই, কিন্তু দাম বাড়ছে। ভোক্তা অধিকার দিয়ে বাজার তদারকিতে সাফল্য আসবে না। খাদ্য ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে নামতে হবে।’’

আমদানিতে ভোগ্যপণ্যের শুল্ক কমিয়ে আনলে দাম সহনীয় হবে মন্তব্য করে সালেহউদ্দিন বলেন, ‘‘পোল্ট্রি ও প্রাণিসম্পদ তেমন কোনো প্রণোদনা পায় না। কৃষি খাত হিসেবে তাদের প্রণোদনা বাড়াতে হবে। এজন্য আইএমএফের কথায় সারে ও কৃষি খাতে ভর্তুকি কমানো যাবে না, এখানে যৌক্তিক হারে দিতে হবে।’’

তিন সূচকে স্বস্তি

>> চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে এপ্রিল-১০ মাসে রপ্তানি আয় বেড়েছে ৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ, আয় এসেছে ৪৭ দশমিক ৪৭ বিলিয়ন ডলার।

>> আগের অর্থবছরের এ সময়ে যা ছিল ৪৫ দশমিক ৬৭ বিলিয়ন ডলার।

>> জুলাই-এপ্রিল সময়ে রেমিটেন্সে প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৮৯ শতাংশ, এসেছে ১৯ দশমিক ১১ বিলিয়ন ডলার।

>> আগের অর্থবছরের এ সময়ে এসেছিল ১৭ দশমিক ৭১ বিলিয়ন ডলার।

>> এ সময়ে রাজস্ব আহরণ ১৫ দশমিক ৬১ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ২ লাখ ৮৯ হাজার ৩৭৭ কোটি টাকা; গত অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল দুই লাখ ৫০ হাজার ২৯৪ কোটি টাকা।

অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন বলেন, ‘‘অর্থনীতির রেমিটেন্স, রপ্তানি ও রাজস্ব আদায় সূচক কিছুটা স্বস্তিতে আছে। অন্য কোনো সূচকে ভালো অবস্থানে নেই। তবে রেমিটেন্স প্রবাহ আরও বাড়ানো যেত। এজন্য সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত লাগবে।’’

সালেহউদ্দিন আহমেদের পরামর্শ বৈধ পথে কেন রেমিটেন্স আসছে তা জরুরিভিত্তিতে সরকারকে দেখতে হবে। এটা দেশ থেকে টাকা পাচারের মাধ্যম হয়ে যাচ্ছে।

রাজস্ব আদায়ে এনবিআরের সক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘‘কর-জিডিপি অনুপাত আমাদের এখনো ৭ দশমিক ৬ শতাংশের ঘরে। কর ছাড় ও কর সুবিধা দেওয়া বন্ধ করতে হবে। কিছু খাতে কর ছাড় যৌক্তিক পর্যায় নামিয়ে আনতে হবে।’’

কর ফাঁকিবাজদের ধরার তাগাদা দিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এনবিআরের বর্তমান কাঠামোতে শুধু লক্ষ্যমাত্রা দিলে হবে না। তাদের সক্ষমতা বাড়াতে হবে।”

কর-জিডিপি অনুপাত বাড়াতে হয়রানিমুক্ত পরিবেশ ও প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়িয়ে এনবিআরকে আরও শক্তিশালী করার পরামর্শ তার।

বাণিজ্য ঘাটতি কমেছে, ঋণ শোধের চাপ আর্থিক হিসাবে

>> জুলাই-মার্চে আমদানি হয়েছে ৪২ দশমিক ২১ বিলিয়ন ডলার, কমেছে ১৫ দশমিক ৪২ শতাংশ।

>> আগের অর্থবছরের এ সময়ে তা ছিল ৫৮ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলার।

গত দুই বছর ধরে আমদানি নিয়ন্ত্রণ নীতির কারণে বাণিজ্য ঘাটতি ধীরে ধীরে কমছে।

>> জুলাই-মার্চে বাণিজ্য ঘাটতি হয়েছে ৪ দশমিক ৭৪ বিলিয়ন ডলার। এক বছরের ব্যবধানে কমেছে ৯ দশমিক ৮৮ বিলিয়ন ডলার বা ৬৭ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

>> আগের অর্থবছরের এ সময়ে যা ছিল ১৪ দশমিক ৬৩ বিলিয়ন ডলার।

এর সঙ্গে রেমিটেন্সে প্রবাহ ইতিবাচক হওয়ায় ঋণাত্বক থেকে এ অর্থবছরে ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে আন্তর্জাতিক লেনদেনের চলতি হিসাব।

>> জুলাই-মার্চে চলতি হিসাবে উদ্বৃত্ত ৫ দশমিক ৭৯ বিলিয়ন ডলার।

>> আগের অর্থবছরের এ সময়ে ঘাটতি ছিল তিন দশমিক ২৯ বিলিয়ন ডলার।

তবে ঋণ পরিশোধের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় আর্থিক হিসাবের ঘাটতি বেড়েছে আগের চেয়ে।

>> জুলাই-মার্চে এ হিসাবে ঘাটতি ৯ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার, যা আগের অর্থবছরের এ সময়ের চেয়ে ৬ দশমিক ৩৩ বিলিয়ন ডলার বা ২১৬ দশমিক ১৮ শতাংশ বেশি।

এমন প্রেক্ষাপটে বিদেশি ঋণ যথাসম্ভব কমিয়ে আনার পরামর্শ দিয়ে সিপিডির ফাহমিদা খাতুন বলেন, ‘‘সামনের দিনে বৈদেশিক দায় পরিশোধের বড় চাপ আসছে। আর্থিক হিসাব এখনও ঘাটতিতে থাকায় বিদেশি ঋণ নেওয়ার প্রবণতা কমাতে হবে। নইলে টাকার মানের উপর আরও চাপ বাড়বে।’’

সুখবর নেই বিদেশি বিনিয়োগেও

>> গত ৯ মাসে মোট এফডিআই (সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ) ছিল ৩ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার।

>> আগের অর্থবছরের এ সময়ে যা ছিল ৩ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন ডলার, শতকরা হারে কমেছে ৪ দশমিক ৯২ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ।

বেশি বিনিয়োগ যখন দরকার তখন তা কমে যাওয়ার জন্য অর্থনীতির নীতি নির্ধারণী সিদ্ধান্তে দ্রুত পরিবর্তন ও জ্বালানি সমস্যাকে দায়ী করেছেন সালেহউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘‘প্রতিযোগী দেশ ভিয়েতনাম বছরে ৭-৮ বিলিয়ন ডলার পায়। ভারতেও গত বছরে বিদেশি বিনিয়োগ এখন লাখ কোটি ডলার ছাড়িয়ে গিয়েছে।’’

বাংলাদেশ কেন পায় না সে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘‘শুধু বললে তো হবে না, বিনিয়োগ পরিবেশ ভালো হতে হবে। তারা জ্বালানি ও পরিবেশের নিশ্চয়তা চাইবে।

“সুদহার ও ডলার নিয়ে ঘনঘন নীতি বদলালে তারা তো কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না। এতে দেশের ক্রেডিট রেটিংস পড়ে যায়। তারা তো ক্রেডিট রেটিংস দেখবে, অর্থ নিয়ে যেতে পারবে কি, না তা দেখবে। এসব জায়গায় উন্নতি করতে হবে।’’

এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ” গত দুই বছর ধরে তো দুটি যুদ্ধ চলছে বিশ্বে, ইউক্রেন-রাশিয়ার পরে ফিলিস্তিন-ইসরায়েলের। রিজার্ভ একটু সংকটে থাকায় আমদানি তো ব্যবসায়ীরা যা চাচ্ছে তা করতে পারছে না। নতুন বিনিয়োগ চাইলেও বেশির ভাগ করতে পারেনি।

”কারখানার বর্তমান সক্ষমতাই ব্যবহার করা যাচ্ছে না, সেখানে নতুন বিনিয়োগ তো হবে না। আমরা আশা করছি সমস্যা কেটে যাবে। বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে, তারাও খোঁজখবর রাখছে। রিজার্ভ একটু বাড়লে তখন সবই হবে। রিজার্ভ বাড়াতে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিটেন্স আরও আনতে হবে। রপ্তানি বৈচিত্রমুখী করার চেষ্টা করা হচ্ছে, এখানেও ভালো কিছু হবে।”

বাড়ছে বিদেশি ঋণ, সুদ পরিশোধ

>> গত ডিসেম্বর শেষে বিদেশি ঋণের পরিমাণ বেড়ে হয়েছে ১০০ দশমিক ৬৩ বিলিয়ন ডলার। পরের চার মাসে তা আরও বেড়েছে।

>> মার্চ পর্যন্ত ৯ মাসে ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার পরিশোধ।

>> এক বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ২৫ কোটি ৩০ লাখ ডলার বা ২০ দশমিক ১৪ শতাংশ।

>> ২০২-২৩ অর্থবছরের এ সময়ে পরিশোধ ১ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার।

রিজার্ভের পতন থামছে না

>> গত ২৭ মে রিজার্ভ বিপিএম৬ পদ্ধতিতে দাঁড়ায় ১৮ দশমিক ৭২ বিলিয়ন ডলার।

>> বাংলাদেশ ব্যাংকের গ্রস হিসাবে তা ২৪ বিলিয়ন ডলার।

>> এক বছর আগে গ্রস হিসাবে ছিল ৩০ বিলিয়ন ডলার।

>> বিপিএম৬ হিসাবে ছিল ২৫ বিলিয়ন ডলার।

>> গত ২১ মে বিনিময় হার ছিল প্রতি ডলার ১১৭ টাকা।

>> এক বছর আগে এ দিনে ছিল ১০৮ টাকা ৫০ পয়সা।

>> এক বছরের ব্যবধানে টাকার মান পড়েছে ৯ টাকা ২৭ পয়সা বা ৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ।

>> গত ১৭ ডিসেম্বর ডলারের দর ছিল ১১০ টাকা।

>> গত ৮ মে বিনিময় দর বাজারভিত্তিক করতে ‘ক্রলিং পেগ’ চালু হলে ডলারের দর হয় ১১৭ টাকা।

>> একদিনে টাকার মান কমে ৬ দশমিক ৩৬ শতাংশ বা ৭ টাকা।

ডলার ও রিজার্ভে টান পড়ার প্রসঙ্গে জাহিদ হোসেন বলেন, ‘‘বছর খানেকের বেশি সময় ধরে রিজার্ভ পতন বেশি হচ্ছে। এটি অর্থনীতির জন্য ভালো কোনো বার্তা দেয় না। আমরা যে সিদ্ধান্তগুলো নিচ্ছি তা বাস্তবসম্মত হচ্ছে না।’’

ব্যবস্থাপনার কারণে রিজার্ভ দুর্বল হচ্ছে মন্তব্য করে সালেহউদ্দিন বলেন, ‘‘গত কয়েক বছর ধরেই তো কত নীতিমালা নেওয়ার কথা শুনলাম। যদি দুর্বল না হত, তাহলে তো রিজার্ভ বাড়ত। কই তা তো বাড়লো না।’’

গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান এম মাশরুর রিয়াজ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘‘এই মুহূর্তে সামষ্টিক অর্থনীতি খুব চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে রিজার্ভ পরিস্থিতি কাঙ্খিত জায়গায় না থাকায়। গত কয়েক বছর ধরে একাধিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরও রিজার্ভ পরিস্থিতি স্থিতিশীল হয়নি। এখানে উন্নতি না হলে টাকার মান ধরে রাখা সম্ভব না, মূল্যস্ফীতি আরও বাড়বে।’’

এডিপি বাস্তবায়নে সেই পুরনো চিত্র

>> গত এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে বাস্তবায়ন হয়েছে ৪৯ দশমিক ২৬ শতাংশ।

>> টাকার অঙ্কে খরচ হয়েছে এক লাখ ২৫ হাজার ৩১৫ কোটি টাকা।

>> বাস্তবায়নের এ হার গত তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

>> আগের অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল ৫০ দশমিক ৩৩ শতাংশ।

বাস্তবায়ন সক্ষমতা ক্রমে দুর্বল হয়ে পড়ছে মন্তব্য করে সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন বলেন, ‘‘এত দুর্বল হচ্ছে যে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। দক্ষতার অভাব তো আছে, সঙ্গে আছে নৈতিকতা ও স্বচ্ছতার অভাব। পাঁচ টাকার জিনিস ১০ টাকা দিয়ে কিনছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে কি না, তাও তো জানা যাচ্ছে না।’’

জিডিপি ৫০ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে

>> বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) চলতি অর্থবছরের সাত মাস শেষের সাময়িক হিসাবে চলতি মূল্যে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) বেড়ে ৫০ লাখ ৪৮ হাজার ২৭ কোটি টাকা হওয়ার প্রাক্কলন করেছে।

> বর্তমান বিনিময় হার অনুযায়ী প্রধান বিদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ ৪৫৯ বিলিয়ন ডলার।

>> গত ২০২২-২৩ অর্থবছর শেষে জিডিপির আকার ছিল ৪৪ লাখ ৯০ হাজার ৮৪২ কোটি টাকা।

> বৈদেশিক মুদ্রায় তা ছিল ৪৫২ বিলিয়ন ডলার।

>> চলতি অর্থবছরের সাত মাসে স্থির মূল্যে জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন হয়েছে ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ।

>> গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে চূড়ান্ত হিসাবে প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৭৮ শতাংশ ছিল।

সরকারের ব্যাংক ঋণও বেড়েছে

>> গত মার্চ পর্যন্ত বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি ১০ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

>> ঋণ স্থিতি ১৫ লাখ ৯৮ হাজার ৫২৯ কোটি টাকা।

>> চলতি অর্থবছরের শেষার্ধে মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০ শতাংশ।

>> গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকারের ব্যাংক ঋণ ২৪ হাজার ৯৬৯ কোটি টাকা।

>> গত মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে নিট ঋণ ৫০ হাজার কোটি টাকা ছাড়ায়।

>> ব্যাংক খাতে সরকারের ঋণ স্থিতি সাড়ে চার লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।

>> ২০২৩ সালের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংক খাতে মোট ঋণ স্থিতি ১৬ লাখ ১৭ হাজার ৬৮৮ কোটি টাকা।

>> খেলাপি এক লাখ ৪৫ হাজার ৬৩৩ কোটি টাকা বা ৯ শতাংশই; ২০২২ সালের ডিসেম্বর শেষে খেলাপি ঋণ ছিল এক লাখ ২০ হাজার ৬৫৬ কোটি টাকা।

ব্যাংক খাতে তারল্য সংকটের মধ্যে সরকারি ঋণ আরও বাড়লে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করা দূরহ হবে বলে মনে করছেন সালেহউদ্দিন আহমেদ। বলেন, ‘‘খেলাপিদের ছাড় দিয়ে কখনই লাভ হয়নি। দুষ্টু ব্যবসায়ীদের ছাড় দিয়ে দুর্বল হচ্ছে ব্যাংক খাত।’’

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, ব্যাংক খাতে তারল্য সংকটের সঙ্গে ইমেজ সংকট বাড়ছে। এটি ঠিক না হলে সরকারের ঋণ নেওয়ার জায়গাও সংকুচিত হবে।

সঞ্চয়পত্র ভাঙছে বেশি

>> বাজেটে চলতি অর্থবছরের জন্য সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৩ হাজার কোটি টাকা।

>> গত মার্চ পর্যন্ত বিক্রির চেয়ে গ্রাহক ভেঙেছে ১২ হাজার ৫৪৫ কোটি টাকা।

>> মার্চ শেষে স্থিতি ছিল তিন লাখ ৫৪ হাজার ৮৪৮ কোটি টাকা।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments